হেঁচকিতে বিব্রতকর? বন্ধ করুন খুব সহজেই।

আপডেট: 2019-09-03 10:51:16

জীবনে কখনও হেঁচকি নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়নি, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না। এমনটা কখনও হতেই পারে না!

ক্লাসের ফাঁকে, অফিসে জরুরি মিটিংয়ের সময়, ঘুমের মাঝে, খাবার খাওয়ার সময় হেঁচকি একটা চরম অস্বস্তিকর, বিব্রতকর অবস্থা তৈরি করে। এমন সময়ে দ্রুত হেঁচকি দূর করতে কী করবেন?

চলুন জেনে নেওয়া যাক হেঁচকি বন্ধ করার ১০টি কার্যকর উপায়-

নিচের যেকোনো একটি কাজে লাগালেই হেঁচকি সমস্যা থেকে উপকার পাবেন আপনি।

১. মুখের উপরের অংশটিতে ভাল করে মালিশ বা ম্যাসাজ করুন। প্রয়োজনে গলার পেছনের অংশে হালকা মালিশ করুন। এতে করেও হেঁচকি কমবে।

২. কাগজের ব্যাগের ভেতরে মাথা ঢুকিয়ে নিশ্বাস নিন। অতি অল্প সময়ের মধ্যেই আপনি উপকার পাবেন।

৩. লম্বা নিঃশ্বাস নিন। হাঁটুকে বুকের কাছাকাছি এনে জড়িয়ে ধরুন এবং কয়েক মিনিট এ ভাবেই থাকুন। এতে তাড়াতাড়ি উপকার পাবেন।

৪. আপনি যখন নাক দিয়ে নিঃশ্বাস নিবেন তখন নাকে হালকা করে চাপ দিন। এটি হেঁচকির সমস্যা কমাতে অনেকটাই সাহায্য করে।

৫. হেঁচকি বন্ধে সহায়ক আরেকটি উপায় হল দুই কানে দুই আঙ্গুল ঢুকিয়ে কিছুক্ষণ থাকুন। দেখবেন হেঁচকি নিমেষেই বন্ধ হয়ে গেছে।

৬. হেঁচকি বন্ধ করতে লেবুর রসের সঙ্গে আদা কুচিও খেতে পারেন। এতে খুব তাড়াতাড়ি উপকার পাবেন।

৭. জিহ্বা টেনে ধরে রাখুন : শুনতে অদ্ভুত শোনালেও এটা কিন্তু বেশ কার্যকর। অনবরত হেঁচকি উঠলে জিহ্বা বের করে আঙ্গুল দিয়ে টেনে ধরে রাখুন কিছুক্ষণ! হেঁচকি থেমে যাবে নির্ঘাত!

৮. এক চামচ পিনাট বাটার : পিনাট বাটার তো এমনিতেই খেতে বেশ ভালো। তাই হেঁচকি উঠলে দেরি না করে ঝটপট খেয়ে নিতে হবে এক চামচ পিনাট বাটার। হেঁচকি থেমে যাবে।

৯. এক চামচ চিনি : ওজন কমাতে চিনি থেকে আপনি দূরে থাকলেও হেঁচকি উঠলে এক চামচ চিনি খেয়ে নিতে ইতস্তত করবেন না যেন! এক চামচ চিনি আপনাকে অনবরত হেঁচকির যন্ত্রণা থেকে তাৎক্ষণিক মুক্তি দিতে সক্ষম।

১০. কানে আঙ্গুল দিয়ে রাখুন : দুই কানের ফুটোয় আঙ্গুল দিয়ে চেপে ধরে রাখুন এমনভাবে যেন আপনি কিছুই শুনছেন না। তবে অতিরিক্ত জোরে চেপে ধরবেন না যেন। কিছুক্ষণ এভাবেই থাকুন। দেখবেন হেঁচকি গায়েব!

১১. পানি পান বা গার্গল : বড় এক গ্লাস পানি পান করুন অথবা গার্গল করার চেষ্টা করুন। হেঁচকি থামাতে চমৎকার কাজে দেবে!

১২. নিঃশ্বাস আটকে রাখা : বড় একটি নিঃশ্বাস নিন এবং যতক্ষণ সম্ভব আটকে রাখার চেষ্টা করুন। সেই সঙ্গে নাক চেপে রাখতে ভুলবেন না৷ যাতে বাতাস বেরিয়ে যেতে না পারে।

১৩. নিজেকে ভয় পাইয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা : নিজেকে ভয় পাইয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করুন। কেননা আপনি ভয় পেলে তা আপনার নার্ভগুলোকেও চমকে দেয়। আর সে কারণেই আপনার হেঁচকিও থেমে যায়। তাই হেঁচকি উঠলে হরর মুভি দেখা শুরু করুন!

১৪. একটি কাগজের ব্যাগে শ্বাস প্রশ্বাস নিন : একটি কাগজের ব্যাগ নিন আর তাতে মুখ রেখে শ্বাস প্রশ্বাস নিন। এতে আপনার রক্তে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ বেড়ে যায় আর সেই সঙ্গে এটি হেঁচকি থামাতেও দারুণভাবে কাজ করে।

১৫. শেষ উপায় একটি অ্যান্টাসিড ট্যাবলেট : এতকিছু করার পরেও যদি আপনার হেঁচকি না থামতে চায় তবে শেষ উপায় একটি অ্যান্টাসিড ট্যাবলেট। কেননা এতে আছে প্রচুর ম্যাগনেশিয়াম, যা আপনার নার্ভগুলোকে শান্ত করে, ফলে হেঁচকি থেমে আসে আপনি আপনিই!