ত্বকের ধরন বুঝে হেয়ার কালার

আপডেট: 2019-01-17 11:13:12

প্রাকৃতিকভাবেই একেক অঞ্চলের মানুষের আকৃতি, গায়ের রং এবং চুলের রং ভিন্ন। কিন্তু একই রকম দেখতে দেখতে একঘেয়েমি কাটাতে নিজের লুক বা আদলে কিছুটা পরিবর্তন করতেই পারেন। অর্থাৎ নিজের লুকে নাটকীয় বদল আনতে চুলের রং পরিবর্তন করাতে পারেন। সেক্ষেত্রে হেয়ার কালার সবচেয়ে ভালো অপশন। তবে হেয়ার কালারের শেড বেছে নেওয়ার সময় কিছুটা সাবধানতা অবলম্বন করতেই হয়।

যার যা ইচ্ছা সেই কালার করে যদি কেউ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন তাতে আপত্তির কিছু নেই। কিন্তু এক্সপার্টের অ্যাডভাইস মেনে হেয়ার কালার করানো উচিত বলেই আমরা মনে করি। হেয়ার কালার করালে প্রথমেই খেয়াল রাখতে হবে আইব্রো-এর কালারে। মাথাভর্তি সোনালি চুল আর কুচকুচে কালো আইব্রো সেই সঙ্গে শ্যামলা গায়ের রং! আপনার সেটা ভালো লাগলেও বাইরের দৃষ্টি তা হবে হাসি ঠাট্টার বিষয়। আমাদের দেশের বেশির ভাগ মানুষের চুলের রং কালো। আর আমাদের গায়ের রং না অনেক ফরসা বা কালো।

এমন মিশ্র ত্বকের জন্য কোন কালারটি বেটার তা কেবল এক্সপার্ট বা কসমোলজিস্টরাই বলতে পারবেন। ব্রাউনের নানা শেড সাধারণত সব ধরনের ত্বকের সঙ্গে মানিয়ে যায়। এক্ষেত্রে  মেহগনির শেড বেছে নিতে পারেন। বার্গান্ডি কালারও মন্দ হবে না। গোল্ডেন হেয়ার কালার আমাদের দেশের মানুষের ত্বকের সঙ্গে একেবারেই বেমানান। তবে চাইলে চুলের কিছুটা অংশের হাইলাইটার হিসেবে ট্রাই করা ডেতে পারে। সাদা বা রুপালি রং-ও এখন হাইলাইটার হিসেবে অনেকের পছন্দ। এ ছাড়া রেড, গ্রিন, ব্লু এবং  নিয়নের নানা শেড এমনকি হলুদ দিয়েও ইন্টারেস্টিং হাইলাইট করা যেতে পারে।

তবে ত্বকের ধরন অনুযায়ী হেয়ার কালার বেছে নিলেই হবে না। মনে রাখতে হবে হেয়ার কালারের কিন্তু বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। যদি চুলে নানা রং নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করতে হয় টেম্পোরারি হেয়ার কালার বেছে নিতে পারেন।  পার্মানেন্ট হেয়ার কালারের জন্য প্রফেশনালের পরামর্শ নিন। তাছাড়া আপনার চুলের ধরন অনুযায়ীও হেয়ার কালার বেছে নেওয়া উচিত। আবার যদি বাড়িতে হেয়ার কালার করাতে একবার হলেও এক্সপার্টের পরামর্শে হেয়ার কালার বেছে নিন। তিনিই বাতলে দিবেন কোনটি আপনার জন্য।